সোমবার , 18 জুন 2018
ব্রেকিং

এবার আর্থিক কেলেঙ্কারিতে French far-right পার্টির নেতা এবং প্রেসিডেন্সিয়াল ক্যান্ডিডেট Marine Le Pen !!

ইউরোপিয়ান পার্লামেন্ট তাদের টাকার অপব্যবহার এর অভিযোগ এনে Marine Le Pen এর কাছ থেকে ২৯৮,০০০ ইউরো ফেরত চেয়েছে নতুবা তাঁর বেতন অর্ধেক করে দেয়া হবে বলে ঘোষণা করেছেন। এখানে উল্লেখ্য করা প্রয়োজন যে, Marine Le Pen ইউরোপিয়ান পার্লামেন্ট এর একজন আইনপ্রণেতা হিসেবে কাজ করেন। Marine Le Pen এর বিরুদ্ধে অভিযোগ যে তিনি তাঁর দুইজন পার্লামেন্টারি অ্যাসিস্ট্যান্টকে তাঁর নিজের রাজনৈতিক পার্টি National Front party এর জন্য কাজ করিয়েছেন।
ইউরোপিয়ান পার্লামেন্ট একটি চিঠিতে Marine Le Pen কে জানান যে, ডিসেম্বর ২০১০ থেকে ফেব্রুয়ারি ২০১৬ পর্যন্ত তিনি তাঁর অ্যাসিস্ট্যান্ট Catherine Griset কে বেতন হিসাবে যেই ২৯৮,৪৯৭.৮৭ ইউরো দিয়েছেন তা ফেরত দিতে হবে।
গতবছর European Anti-Fraud Office (OLAF) একটি রিপোর্টে ব্যাপারটি নজরে আনেন।তারা প্রকাশ করেন যে, Catherine Griset তাঁর কর্মস্থল ইউরোপিয়ান পার্লামেন্ট এর হেড কোয়ার্টার ব্রাসেলসে নিয়মিত উপস্থিত থাকার প্রমাণ দিতে ব্যর্থ হয়েছেন। তাছাড়া তাঁরা এও বলেন যে পার্লামেন্টারি অ্যাসিস্ট্যান্ট হিসেবে কাজের সময়ে Catherine Griset মূলত National Front party এর হেড অফিস প্যারিসে একটি গুরুত্বপূর্ণ পদে ছিলেন । এছাড়াও Marine Le Pen কে দ্বিতীয় চিঠিতে জানানো হয়েছে যে তাঁর ব্যক্তিগত নিরাপত্তারক্ষী Thierry Légier কে বেতন হিসেবে প্রদান করা ৪১,৫৫৪ ইউরো ফেরত দিতে হবে। তাঁকে একটা সময়সীমা বেঁধে দেয়া হয়েছে। বিভিন্ন ফেঞ্ছ গণমাধ্যম থেকে জানা যায় যদি এর মধ্যে Marine Le Pen টাকা ফেরত দিতে না পারেন তাহলে তাঁর বেতন ৫০% কমিয়ে দিবে ইউরোপিয়ান পার্লামেন্ট,বাকি ৫০% টাকা তাঁর কাছ থেকে পাওনা হিসাবে রেখে দেয়া হবে।
যদিও গত শনিবার TF1 এর সাথে এক সাক্ষাৎকালে তিনি বিষয়টি অস্বীকার করেন। তিনি দাবি করেন যে তিনি কোন ভুল করেন নি। তবে যাই হোক, Les Républicains (LR )এর প্রার্থী Francois Fillon এর পরে Marine Le Pen এর বিরুদ্ধেও আর্থিক কেলেংকারি এর অভিযোগ আসন্ন ফ্রেঞ্চ নির্বাচন এর অনেক হিসাব উল্টে দিচ্ছে।

print

মন্তব্য করুন

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.