বুধবার , 17 অক্টোবর 2018
ব্রেকিং

মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশ দূতাবাসে কন্স্যুলার সেবা সপ্তাহের আলোচনা সভা

আহমাদুল কবির, মালয়েশিয়া থেকে:

মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশ দূতাবাসে কন্স্যুলার সেবা সপ্তাহ উপলক্ষ্যে আলোচনা সভা অনুষ্টিত হয়েছে।

বাংলাদেশের স্বল্পোন্নত সারির দেশ হতে মধ্যম আয়ের দেশে উত্তরণ যোগ্যতা অর্জনের ঐতিহাসিক সাফল্যের লক্ষ্যে এ বিশেষ ব্যবস্তা নেয়া হয়েছে। এ সময়ে সেবা প্রত্যাশীদের মধ্যে আরও দ্রুত সেবা প্রদান এবং সরাসরি সাক্ষাতের মাধ্যমে অন্যান্য সমস্যা সমাধানের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। এছাড়াও দূতাবাস কর্তৃক প্রদত্ত সেবাসমূহ প্রাপ্তির ব্যপারে জনগণের মধ্যে সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে এ সেবা দেয়া হবে।

বুধবার মালয়েশিয়া সময় সকাল সাড়ে ১০ টায় এ সভা অনুষ্টিত হয়।

রাষ্ট্রদূত মহ: শহীদুল ইসলামের সভাপতিত্বে ও শ্রম কাউন্সিলর মো: সায়েদুল ইসলামের পরিচালনায় কন্স্যুলার সেবা সপ্তাহের আলোচনা সভায় রাষ্ট্রদূত তার বক্তব্যে বলেন, স্বাধীনতার পর থেকে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বিদেশগামী ও বিদেশে বসবাসরত লক্ষ লক্ষ বাংলাদেশিদের স্বার্থ সংরক্ষণ ও তাদের বিভিন্ন সমস্যা সমাধানের নিমিত্তে নিরলস কাজ করে যাচ্ছে। কূটনৈতিক ও প্রশাসনিক দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি বিশ্বের ৫৮ টি দেশে মোট ৭৪টি মিশনের মাধ্যমে বাংলাদেশের নাগরিকদের কনস্যুলার সেবা প্রদান করে আসছে।

রাষ্ট্রদূত বলেন,এই কন্স্যুলার সেবা সপ্তাহ কার্যক্রমের মধ্যে নতুন মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট প্রাপ্তি ও নবায়ন, জন্ম-নিবন্ধন ও ভোটার কার্ড এর মাধ্যমে এমআরপি পাসপো র্টের আবেদনপত্র গ্রহণ, ফরম পুরণের খুঁটিনাটি সরাসরি তত্ত্বাবধান, প্রয়োজনীয় পরামর্শ প্রদান, এবং আবেদনকারীদের ছবি ও আঙ্গুলের ছাপ গ্রহণ বা বায়োমেট্রিক তথ্য নিবন্ধন।  এদিকে পাসপোর্ট ফি সংক্রান্ত বিষয় যেমন প্রফেশনাল ও ডিপেনডেন্টদের জন্য ৩৮৫ আরএম, স্টুডেন্ট এবং ওয়ার্কারদের জন্য ১১৬ আরএম এর ব্যাংক ড্রাফট করতে হবে।  এ ছাড়া ভিসা কপি, স্টুডেন্ট আইডি, ওয়ার্ক পারমিটসহ সংশ্লিষ্ট দলিলাদি আনতে হবে।

২০১৭ সালে মালয়েশিয়াস্থ বাংলাদেশ হাইকমিশন থেকে পাসপোর্ট ইস্যু হয়েছে- ১ লাখ ৯৮ হাজার ৮০১টি। পাসপোর্টের আবেদন বা এনরোলমেন্ট করা হয়েছে ২ লাখ ১০ হাজার। এছাড়া গত বছর ৪ লাখ প্রবাসী বাংলাদেশিকে পাসপোর্ট সেবা দেয়া হয়েছে।

এক দিনে সর্বোচ্চ ২ হাজার ৫০০ পাসপোর্ট ডেলিভারি ও প্রায় ২ হাজার নতুন পাসপোর্ট তৈরির আবেদন গ্রহণ বা এনরোলমেন্ট করা হয়েছে। বর্তমানে প্রতিদিন গড়ে দুই থেকে আড়াই হাজার লোকের সেবা দেয়া হচ্ছে।

রাষ্ট্রদূত আরও বলেন,এছাড়া আটকেপড়া বাংলাদেশি নাগরিকদের দ্রুত দেশে প্রত্যাবাসনের ব্যবস্থাকরণ, অবৈধ বাংলাদেশি নাগরিকদের বৈধকরণের উদ্যোগ গ্রহণ, প্রয়োজনীয় সনদপত্র ইস্যুকরণ ও সত্যায়ন, কোন বাংলাদেশী নাগরিক বিদেশে মৃত্যুবরণ করলে তার মৃতদেহ দেশে ফিরিয়ে আনার ব্যবস্থা করাসহ আরও বহুবিধ কাজ দূতাবাসের সকল কর্ম-কর্তারা নিরলস কাজ করে চলেছেন।

সেবা সপ্তাহ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, ডিফেন্স উইং এয়ার কমডোর মো. হুমায়ুন কবির,  পাসপোর্ট ও ভিসা শাখার প্রথম সচিব মো. মশিউর রহমান তালুকদার, পাসপোর্ট বিভাগের প্রজেক্ট ডিরেক্টর মেজর আবেদ, ডেপুটি ডিরেক্টর সাইদুর রহমান, প্রথম চিব তাহমিনা ইয়াসমিন, দূতাবাসের  ২য় সচিব শ্রম ফরিদ আহমেদ ও দূতাবাসের সকল কর্মকর্তা সহ শত শত সেবা প্রত্যাশিরা ।

 উল্লেখ্য, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অধীনে ২০১৭ সালে বিভিন্ন মিশনে ১ লাখ ৪৩ হাজার ১৯০টি সত্যায়ন, ৭ লাখ ১৪ হাজার ৮৬টি এম আর পি পাসপোর্ট ইস্যুকরণ, ২৩ হাজার ৬৬৪টি ট্র্যাভেল পারমিট প্রদান, ৮৮ হাজার ৯৯৮ জন নাগরিকের প্রত্যাবাসন সেবা প্রদান করেছে। এবছর বিশেষ কনস্যুলার সেবা সপ্তাহ আয়োজনের মাধ্যমে  মন্ত্রণালয়ের সেবা প্রদান কার্যক্রমে একটি নতুন মাত্রা যুক্ত হল। 

print

মন্তব্য করুন

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.