শনিবার , 15 ডিসেম্বর 2018
ব্রেকিং

বাংলা সংস্কৃতিকে বিশ্ব দরবারে তুলে ধরবার দৃঢ় প্রত্যয়ে ওয়াশিংটনে অনুষ্ঠিত হল ফ্রেন্ডস এন্ড ফ্যামেলীর নববর্ষ বরণ

ওয়াশিংটন : বাংলা আর বাঙালি সংস্কৃতিকে প্রজন্ম থেকে প্রজন্মে ছড়িয়ে দিয়ে বিশ^ দরবারে বাংলাদেশকে তুলে ধরবার দীপ্ত অঙ্গীকারের মধ্যে দিয়ে ওয়াশিংটনে অনুষ্ঠিত হল ফ্রেন্ডস এন্ড ফ্যামেলীর বর্ষবরন ”বৈশাখী মেলা ১৪২৫”। বিশ্বায়নের বাস্তবতায় বাঙালির আত্মপরিচয়ের তালাশে আহবানে যুক্তরাষ্ট্রের রাজধানী ওয়াশিংটনের অদুরে নয়নাভীরাম পোটম্যাক নদীর তীরে অবস্থিত ভার্জিনিয়ার আর্লিংটনস্থ গেটওয়ে পার্কে সবুজ শ্যামল ছায়ায় অনুষ্ঠিত হল এই বৈশাখী মেলা ১৪২৫।

লেখক সাংবাদিক শিব্বীর আহমেদ ও সারা তান্নীর উপস্থাপনায় অনুষ্ঠিত এই বৈশাখী মেলায় প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন যুক্তরাষ্ট্রে নিযুক্ত বাংলাদেশ দূতবাসের ডেপুটি মিশন প্রধান মাহবুব হাসান সালেহ। বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন যুক্তরাষ্ট্রে নিযুক্ত বাংলাদশে রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ জিয়াউদ্দীনের স্ত্রী মিসেস ইয়াসমিন জিয়াউদ্দীন, ভয়েস অব আমেরিকা বাংলা বিভাগের প্রধান রোকেয়া হায়দার। এছাড়াও আমন্ত্রীত অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন আর্লিংটন কাউন্টি বোর্ড সুপারভাইজার কেইট ক্রিষ্টাল, কংগ্রেস প্রার্থী এলিশন ফ্রাইডম্যান, কংগ্রেস প্রার্থী জাসমিন মোয়াদ, ও মুসলিম ককাস অব আমেরিকার প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি গাজালা সালাম।

আর্লিংটনের গেটওয়ে পার্কে ফ্রেন্ডস এন্ড ফ্যামেলী ১৪২৫ বঙ্গাব্দ বরণ করেছে। বিকাল প্রায় সাড়ে তিন ঘটিকার সময় সম্মিলিত কন্ঠে ”এসো হে বৈশাখ” সংগীত পরিবেশনার মধ্যে দিয়ে বৃহত্তর ওয়াশিংটন প্রবাসীরা স্বাগত জানান পহেলা বৈশাখকে। লাল হলুদ সবুজ সহ বিভিন্ন রঙ বেরঙের পোশাকে এ সময় উপস্থিত দর্শক শ্রোতা ও শিল্পীবৃন্দ সুর-ছন্দ আর তাল-লয়ে বৈশাখের বন্দনা করে স্বাগত জানান নতুন বছর ১৪২৫-কে। তাদের সে আয়োজনে ছিলো বৈশাখের মগ্নতা, হৃদয়ে নতুনকে কাছে পাবার তৃষ্ণা আহবান। ধর্ম-বর্ণ-নির্বিশেষে সকলের অংশগ্রহণ ও উচ্ছ্বাসে আরো দীপ্ত হয়ে উঠে নতুন বছর ১৪২৫ এর প্রথম দিন।

অনুষ্ঠানে একক সঙ্গীত, দলীয় সঙ্গীত ও নৃত্যে অংশগ্রহন করে শান্তানু বড়–য়া, এরিকা, বৃষ্টি, জাফর বাউল (মেট্র), শিল্পী রোজারীও, পিটার, সান্দ্রা, মনিষা, রিতা, শেরিল, সামান্তা, এলিজাবেথ, সারা, রাফি, দিপ্তী, উৎপল বড়–য়া, বনানী চৌধুরী, অংকিতা, অবন্তি, সুষ্মিতা ও অতশী। অনুষ্ঠানের শব্দ নিয়ন্ত্রন শিশির, কিবোর্ড সৌমি, ড্রাম ক্যানী, গীটার তুর্ঘ, তবলা আশীষ, বেইজ নাফিস ও রাফি, এবং অক্টোপ্যাড প্রান্তীক। অনুষ্ঠানের সার্বিক তত্বাবধানে ছিলেন আবু রুমি, শামসুন পারভিন, আকতার হোসাইন, ও ফাহমিদা শম্পা।

অনুষ্ঠানের গ্রান্ড স্পন্সর ডাটা গ্রুপ, গোল্ডেন ষ্পন্সর ইএন্ডআর হেলথ, কবির পাটোয়ারী ও পারভিন পাটোয়ারী, গো ঢাকা ডট কম, অলষ্টেট মোহাম্মদ আলী, রিয়েষ্টেট আবু তারেক ও মাসুদ, ঘরের খাবার, কাবাব কিং মোহাম্মদ হোসাইন, ই এন্ড আর ট্যাক্স, আয়কর বিশেষজ্ঞ সালাউদ্দীন ইয়াহিয়া প্রমুখ। অনুষ্ঠানে কমিউনিটিতে বিশেষ অবদানের জন্য অ্যান্থনী পিয়ুষ গোমেজ, সুবীর কাষ্মির পেরেরা, ফকির সেলিম, রাজিব বড়–য়া, বিপ্লব দত্ত, কচি খান, বনানী চৌধুরী, শিল্পী রোজারীও, করিম সালাউদ্দীন ও মোস্তফা হোসাইন মুকুলকে অ্যাওয়ার্ড প্রদান করা হয়। এছাড়াও বিশেষ অ্যাওয়ার্ড গ্রহন করেন শামসুন পারভিন ও ফাহমিদা হোসাইন। অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি ও বিশেষ অতিথিবৃন্দ এই অ্যাওয়ার্ড প্রদান করেন। এ সময় ফ্রেন্ডস এন্ড ফ্যামেলীর দুই কর্মকর্তা আবু রুমি ও আকতার হোসাইন উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে প্রায় চল্লিশটিরও বেশি ষ্টল বসে। ষ্টলগুলোতে শাড়ী চুড়ি দেশীয় পোষাক, পন্য, খেলনা ও খাবার সহ নানাবিধ জিনিষপত্রের সমাহার ছিল। ষ্টলগুলোতে দিনভর মানুষের উপচে পড়া ভীড় ছিল লক্ষনীয়। অনুষ্ঠানের বিশেষ আকর্ষন হিসাবে উপস্থিত ছিলেন নিউইয়র্ক থেকে আগত শফিক ঢোলকীয়, কলকাতা থেকে আগত শিল্পী প্রিয়ংকদা ব্যানার্জী এবং বাংলাদেশ থেকে আগত বাউল শিল্পী নাসিমা দেওয়ান।

অনুষ্ঠানের প্রধান আকর্ষন নাসিমা দেওয়ান বুড়ি হইলাম তোর কারনে, সোনা বন্ধু ভুইলনা আমারে, সাধের লাউ, তোমার লেখা গান আমি গাইব, বন্ধু বিনে পাগল মনে, আমায় ঘর ছাড়া করিল মরার কোকিলে ইত্যাদি জনপ্রিয় গানগুলো প্রায় ঘন্টা ধরে পরিবেশন করেন। এ সময় শফিক ঢোলকীয়ার ঢোলের তালে তালে আর গানে গানে ওয়াশিংটন প্রবাসী বাঙালিরা গানের তালেতালে নেচে গেয়ে আনন্দ করেন। সহ্যৃা প্রায় সাড়ে আট ঘটিকার সময় ফ্রেন্ডস এন্ড ফ্যামেলীর কর্মকর্তা আবু রুমি ও আকতার হোসাইন সবাইকে আবারো নববর্ষের শুভেচ্ছা জানিয়ে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘোষনা করেন।

print

মন্তব্য করুন

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.