মঙ্গলবার , 20 আগস্ট 2019
ব্রেকিং

বিএনপি-জামায়াত লড়াইয়ে হেরে গেছে: নাসিম

Nasim_pic

নবকণ্ঠ ডেস্কঃ আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনের জন্য বিএনপিকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে বলে মন্তব্য করেছেন স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনামন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম। সেই নির্বাচনকে টার্গেট করে দলের নেতা-কর্মীদের কাজ করার জন্য আহ্বান জানান আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য।

আজ রোববার বিকেলে টাঙ্গাইলের ভাসানী হলে সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলনে এসব কথা বলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী। মো. আব্দুর রশিদ লেবুর সভাপতিত্বে সম্মেলনের উদ্বোধন করেন জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আলমগীর খান মেনু। এ ছাড়া বক্তব্য দেন জেলা পরিষদের প্রশাসক ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ফজলুর রহমান খান ফারুক।

১৪ দলের কেন্দ্রীয় সমন্বয়ক মোহাম্মদ নাসিম বলেন, ‘বিএনপি-জামায়াত এই লড়াইয়ে হেরে গেছে। কারণ তারা ভুল পথে ছিল। ভুল পথে তারা চলে গিয়েছিল। ৫ জানুয়ারির নির্বাচন না করে বিএনপি নেত্রী নিজে ভুল করেছেন। সেই ভুলের খেসারত দেওয়ার জন্য তিনি দুইশর বেশি মানুষকে হত্যা করেছেন এই সাম্প্রতিককালে। তার আগে (হত্যা) করেছিলেন আরো কয়েকশ লোককে। মানুষ এটা ভুলে নাই। মানুষ তাঁকে (খালেদা জিয়া) ক্ষমা করতে পারে নাই। কিন্তু খালেদা জিয়ার দল ও জামায়াতে ইসলামের চরিত্রের কোনো পরিবর্তন হবে না মনে রাখবেন। এরা আবার ছোবল দেবে, আবার মাঠে নামবে, আবার চক্রান্ত করবে। কিন্তু আওয়ামী লীগকে জনগণের শক্তি দিয়ে মোকাবিলা করতে হবে, আবার তাদের পরাস্ত করতে হবে ইনশাল্লাহ।’

‘এ জন্য আমাদের টার্গেট হলো ২০১৯ সাল। খালেদা জিয়া আপনি বলেছেন, আপনি নির্বাচন চান। নির্বাচন অবশ্যই হবে। ২০১৯ সালের একদিন আগেও ইলেকশন হবে না, হওয়ার কোনো সম্ভাবনা নাই। কারণ ইলেকশন হাতের মোয়া নয়, যখন চাইবেন তখন আপনাকে দেওয়া হবে। অপেক্ষা করতে হবে চার বছর প্রায়, তারপর ইলেকশন হবে। ইলেকশন হবে সংবিধান অনুযায়ী, শেখ হাসিনার অধীনে ইলেকশন হবে। তার বাইরে কিছু হবে না, হওয়ার সম্ভাবনা নাই।’

স্বাস্থ্যমন্ত্রী আরো বলেন, ‘তাই আপনাকে (খালেদা জিয়া) অপেক্ষা করতে হবে। আপনি রাজনীতি করেন, জনসভা করেন। মিটিং-মিছিল করেন আমাদের বিরুদ্ধে কোনো অসুবিধা নাই। রাজনৈতিক দল হিসেবে বাংলাদেশের মানুষের কাছে বিএনপি এখন পরিচিত না, জঙ্গি দল হিসেবে পরিচিত।’

print

মন্তব্য করুন

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.