Saturday , 16 October 2021
Breaking

‘প্রভাব খাটিয়ে ধর্ষন’- ফ্রান্সের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর উপর নারীবাদীদের নতুন মামলার ঝড়

ফ্রান্সের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী Gérald Darmanin এর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পদের প্রথম দুই সপ্তাহে কম হট্টগোল হয় নি। কারণ,
ধর্ষনের অভিযোগে কেউ তদন্তের অধীনে থাকলে তিনি কি আইন-রক্ষাকারী “টপ-কোপ” এর চেয়ারে বসতে পারেন কিনা – এই প্রশ্নের উত্তর চান মামলাকারী একটি ফেমিনিস্ট গ্রুপ।

গত বুধবার সন্ধ্যায় Gérald Darmanin এর উপর নতুন করে চাপ সৃষ্টি হয় যখন নারীবাদী গ্রুপটি দাবী করে,

টুরকোইং এর মেয়র থাকা কালীন Gérald Darmanin ক্ষমতা ও প্রভাবের অপব্যবহার করেছেন এবং তারা এ বিষয়ে নতুন করে বিচার চান।

Darmanin এর আইনজীবী মাথিয়াস চার্চপোর্টিশ এসব দাবী নাকচ করেছেন। সঙ্গে উদ্বৃত্তি দিয়েছেন টুরকোইং এর সে সময়কার প্রকাশনা প্লিনটিফের একটি লিখিত বিবৃতির।
বিবৃতিতে বিষয়টিকে “সমাধানকৃত বিষয়” বলে উল্লেখ করা করা হয়েছিল বলে তিনি জানান।

জুলাই এর ৬ তারিখে ৩৭ বছর বয়সী এই স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর নিয়োগের ফলে তাৎক্ষণিক ক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে যা কমার কোনো লক্ষণ দেখা যায় নি। নারী অধিকার প্রচারকরা এ পর্যন্ত দারমানিনের জনসমক্ষে প্রতিটি উপস্থিতিতে প্রতিবাদের জন্য জড়ো হতে ছাড়ে নি।

সোফি প্যাটারসন-স্পাতজ নামের এক নারী ধর্ষিত হওয়ার দাবী করেছেন।

বর্তমান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ফ্রান্সের মূল ডানপন্থী দল রিপাবলিকানদের পূর্বসূরি ইউএমপির আইন বিষয়ক উপদেষ্টা থাকাকালীন ২০০৯ সালে নিজের বিরুদ্ধে অপরাধমূলক রেকর্ড বাতিল করার জন্য তার সহায়তা চেয়েছিলেন বলে দারমানিনের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেছেন সোফি।

দারমানিনের দাবী এটি ধর্ষন নয়, বরং সম্মতিতেই ঘটেছে।

এই মামলাটি একাধিকবার খারিজ করে দেয়া হয়েছে, তবে সোফি প্যাটারসন প্যারিসে অবস্থিত ফ্রান্সের সর্বোচ্চ আদালতের কাছে যাওয়ার পরে গত মাসে প্যারিসের আপিল বিচারকরা নতুন তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন।

এই রায় ঘোষণার ঠিক কয়েক সপ্তাহ পরে দারমানিনকে মূল মন্ত্রিসভায় পদোন্নতি দেওয়ার বিষয় নিয়ে হৈচৈ পড়ে যেটি সরকার ও রাষ্ট্রপতি এমমানুয়েল ম্যাখোঁ-এর কেন্দ্রবাদী দলকে অবাক করে দিয়েছে।

দারমানিনের প্রতি তার দল মূলত তার কোমল ও নিষ্কলঙ্ক মনোভাবের উপর আনুমানিক জোর দিচ্ছে, এমনকি চলমান তদন্ত সত্ত্বেও তাকে মুক্তি দেয়া হয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে।

ফরাসি টেলিভিশনে ম্যাখোঁ ব্যাখ্যা করেছিলেন যে দারমানিনের সাথে তাঁর “আস্থার সম্পর্ক, মনুষ্যত্বের সম্পর্ক” ছিল, কিন্তু কথাগুলো উলটো সমালোচিত হয়েছে বেশী।

‘তারা একজনের সন্ধান চাইছেন’

ম্যাখোঁর দলের একজন সদস্য এএফপিকে এই বলে চাপা দিয়েছেন যে, এই ফৌজদারি মামলাটি “সঠিক দিকে”ই বিকশিত হচ্ছে এবং দারমানিনের পদায়নে কোনও বাধা তৈরী করে নি, তাই তিনি এই নিয়োগের পক্ষেই অবস্থান নিয়েছেন।

দারমানিন নিজেই একটি “মানহান্ট” এর অভিযোগ করেছেন এবং এই সপ্তাহে একটি আঞ্চলিক সংবাদপত্রকে বলেছেন যে একজন মিথ্যা অভিযোগে অভিযুক্ত ব্যক্তির পক্ষে পিতামাতাকে বোঝানো বেশ কঠিন ছিল যে আসলে “কি হয়েছিল”, “কারণ, এটি সত্য, আমি একজন যুবকের জীবনযাপন করছিলাম”।

প্যাটারসন-স্প্যাটজ দারমানিনকে যৌন হয়রানি ও ক্ষমতার অপব্যবহারেরও অভিযোগ করেছেন। এর জেরে দারমানিনও সোফি প্যাটারসন-স্পাৎজ এর বিরুদ্ধে মানহানির অভিযোগ দায়ের করেছেন।

এমনকি যদি তাকে শেষ পর্যন্ত নির্দোষ বানানো হয়, সমালোচকরা বলছেন যে কেবলমাত্র অবৈধতার ইঙ্গিতটি দারমানিনকে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের চাকরির জন্য অনুপযুক্ত করে তুলতে যথেষ্ট। বিশেষত ম্যাখোঁ যখন “জনজীবনের নৈতিকতা”র প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন।

প্যারিসের সায়েন্সেস পো ইউনিভার্সিটির বিশ্লেষক ফিলিপ মোরাও-শেভ্রোলেট বলেছেন, ” এটি নিশ্চিত নয় যে আমরা এই মামলার ফলে যে ক্ষয়ক্ষতি ঘটছে তার যথাযথ মূল্যায়ন করছি।” রাজনৈতিক অবিশ্বাসের এই সময়ে দারমানিনের জন্য রাজনৈতিক সমর্থনকে ফুলিয়ে তোলা হচ্ছে বলেও তিনি উল্লেখ করেন।

এদিকে নাম না প্রকাশের শর্তে একজন মন্ত্রী আগেই আশঙ্কা করেছিলেন, “বিরক্তিকর বিষয় হ’ল এই সমস্যাটি ছড়িয়ে পড়বে।”

একটি প্রেস সাক্ষাত্কারে দারমানিন বলেছিলেন যে, তিনি “সম্পূর্ণ স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করছেন”। দারমানিনের সম্মানকে ক্ষতি করে এমং মানহানিমূলক মন্তব্যের বিরুদ্ধে তিনি মামলা করার অধিকার রাখেন বলে মঙ্গলবার তার আইনজীবীরা পালটা হুঁশিয়ারিও দিয়েছেন।

এমনকি তার নিজস্ব মন্ত্রণালয়ের মধ্যেই, দারমানিনের নিয়োগ সেই পুলিশ অফিসারদের ভ্রু কুঁচকে যাওয়ার কারণ হয়ে দাড়িয়েছে যাদের বস হয়ে বসেছেন স্বয়ং দারমানিন।

‘ধর্ষণের সংস্কৃতি’

এছাড়াও তাঁর সহযোগী মন্ত্রিপরিষদ সদস্যরা নিজেরাও কঠিন অবস্থায় পড়েছেন।

লিঙ্গীয় সাম্যের নতুন মন্ত্রী এলিসাবেথ মোরেনো দারমানিনের সাথে “মহিলা-পুরুষ” কথোপকথনের পরে বলেন, “তিনি সন্দেহের উপযুক্ত”। “তবে যদি তিনি দোষী সাব্যস্ত হন তবে আমরা আবার কথা বলব” – বলে আশ্বাস দেন তিনি।

একজন মন্ত্রী এএফপিকে বলেছেন, “আইনীভাবে বললে, আমি মনে করি মামলাটি পিছিয়ে আছে। তবে নৈতিকভাবে দেখলে প্রশ্ন ওঠে দারমানিন কি কোনোদিন মহিলাদের প্রতি ভাল আচরণ করেছিলেন?”

এমন অভিযোগ দারমানিনের বিরুদ্ধে প্রথম নয় – এক মহিলা দারমানিনের বিরুদ্ধে ২০১৪ থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত উত্তরের শহর ট্যুরকোংয়ের মেয়র হিসাবে যৌন সুবিধা পেতে তাঁর অবস্থান ব্যবহার করার অভিযোগ করেছিলেন, যদিও প্রসিকিউটররা এই মামলাটি ২০১৮ সালে বাতিল করেন।

ইরানের নোবেল শান্তি পুরষ্কার বিজয়ী শিরিন ইবাদি সহ মহিলাদের অধিকারকর্মীরা লে মনডে তে, ম্যাখোঁ-র মন্ত্রিসভা বদল ও দারমানিনকে পদোন্নতি দেয়াকে “নারীবাদ বিরোধী রাজনৈতিক পদক্ষেপ” হিসাবে চিহ্নিত করেছেন।

দারমানিনের নিয়োগের পর থেকে প্যারিসে এবং ফ্রান্সের বাকী অংশে এমনকি ব্রাসেলসেও প্রতিবাদ শুরু হয়েছে। স্লোগানে স্লোগানে নারীবাদিরা দাবী করছেন “ধর্ষণের সংস্কৃতি চলছেই”।

Copyright@Nobokontho.com [DMCA protected]

fnflab

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.