বৃহস্পতিবার , 20 ফেব্রুয়ারী 2020
ব্রেকিং

রামপালে তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্র র্নিমান ইস্যুতে প্যারিসে মুক্ত আলোচনা অনুস্ঠিত

মোহাম্মদ মাহবুব হোসাইন, প্যারিস (ফ্রান্স) থেকে ০৪ সেপ্টেম্বর ২০১৬14199373_1284469974898525_5109149445901592679_n
গতকাল ৩ সেপ্টম্বর ২০১৬ শনিবার ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসের র্গাদুনদস্থ একটি অভিজাত রেস্টুরেন্টে ফ্রান্স বাংলা প্রেসক্লাবের আয়োজনে বাংলাদেশের বাগেরহাট জেলার রামপাল উপজেলায় ভারত বাংলাদেশ যৌথ উদ্যোগে প্রস্তাবিত তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্র র্নিমান ইস্যুতে অনুস্ঠিত হয় মুক্ত আলোচনা । ফ্রান্স বাংলা প্রেসক্লাবের ট্রেজারার মোহাম্মদ মাহবুব হোসাইন এর সঞ্চালনায় মুক্তালোচনায় প্রবাসী বাংলাদেশী বিভিন্ন রাজনৈতিক দল, সামাজিক সংগঠন, কমিউনিটি ও সুশীল সমাজের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত  থেকে বক্তব্য রাখেন। মুক্তালোচনায় অংশ নেন বাগপা এর চেয়ারম্যান এডভোকেট কাজী আব্দুল্লাহ আল মামুন, বিএনপি ফ্রান্স শাখার সাবেক সভাপতি সিরাজুল ইসলাম মিয়া, ড. কামরুল হাসান, জাতীয় পার্টির ফ্রান্স শাখার সভাপতি একেএম আলমগীর,  এটিএম রেজা, খান মনির হোসেন, জাতীয়তাবাদী নাগরিক মুক্তি পরিষদ ফ্রান্স এর সভানেত্রী শামীমা আখতার রুবী, বিএনপি নেতা খোরশেদ মাদবর, বিএনপি ফ্রান্স শাখার মুক্তিযুদ্ধো বিষয়ক সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা ওমর গাজী, ফ্রান্স বাংলা প্রেসক্লাবের সহ-সভাপতি মুহাম্মদ নুরুল ইসলাম, দপ্তর সম্পাদক বাসুদেব গোস্বামী, আবুল খায়ের, রেজাউল করিম রকি, আবুল কালাম আযাদ ও মিজানুর রহমান প্রমূখ । স্বাগত বক্তব্য রাখেন ফ্রান্স বাংলা প্রেসক্লাবের সাংগঠনিক সম্পাদক ফয়সাল আহমেদ দ্বীপ । সভায় বক্তারা প্রস্তাবিত রামপাল তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্র র্নিমানের ফলে কি ধরনের ক্ষতির সম্ম্ভাবনা রয়েছে সেই বিষয়ে তথ্য র্নিভর বক্তব্য তুলে ধরেন। তারা বলেন, এই বিদ্যুৎ কেন্দ্র র্নিমানের ফলে বাংলাদেশের একমাত্র বন সুন্দরবন চরম প্রাকৃতিক ঝুকির মধ্যে থাকবে। প্রতি বছর যে পরিমাণ কয়লা পোড়ানো হবে; তাতে পরিবেশের ভারসম্য নষ্ট হবে। বছরে যে পরিমান জাহাজ পশুর নদীতে প্রবেশ করবে ;তাতে পশুর নদীর জলজ জীব ধ্বংস হয়ে যাবে। জাহাের র্নিগত বর্জে শান্ত নদীর দুধারের গাছ-পালা উজাড় হয়ে বন্য প্রানীর খাদ্যের অভাব দেখা দেবে। যে পরিমান রেডিয়েসন সৃষ্টি হবে , তাতে অদুর ভবিষ্যতে এলাকায় বিকলাঙ্গ শিশুর জন্ম হবে। যেমনটা এখনও জাপানের হিরোশিমা নাগাসকিতে হচ্ছে। তারা বলেন, যে বন আমাদের চাহিদার চল্লিশ শতাংশ কাঠ সরবরাহ করে; তা বিলিন হয়ে গেলে আমাদের নিউজ প্রিন্ট কারখানা সহ কাঠ সংস্লিষ্ট সকল কারখানা বন্ধ হয়ে যাবে এবং দেশে বেকারত্বের সংখ্যা বারবে। অর্থনৈতিক লাভের বিষয়টি উল্লেখ করে বক্তারা বলেন, সুন্দর বনের বাইরে তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্র যেখানেই করা হোকনা কেনো ; রাষ্টের স্বার্থের বিষয়টি অবশ্যই রক্ষা করতে হবে। রামপাল বিদ্যুৎ কেন্দ্র সংক্রান্ত দুদেশের মধ্যে যে চুক্তি হয়েছে; তাতে বাংলাদেশকে ঠকানো হয়েছে । এটি একটি অসম চুক্তি হিসেবেও বক্তারা উল্লেখ করেন। বক্তারা জীব-বৈচিত্র সুরক্ষার জন্য সুন্দরবনের পাশে তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণ না করার জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানান।
print

মন্তব্য করুন

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.