বৃহস্পতিবার , 4 জুন 2020
ব্রেকিং

১৫ দিনের জন্য ফ্রান্স লকডাউন

-রাকিবুল ইসলাম

আজ সোমবার রাত ৮টায় ফ্রান্সের রাষ্ট্রপতি ইমানুয়েল ম্যাক্রন জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণ দিয়েছেন। করোনা ভাইরাস মোকাবিলায় ফ্রান্সের পরবর্তী পদক্ষেপ জানাতে প্যারিসে এলিসি প্রাসাদ থেকে রাষ্ট্রপতি এই ভাষণ দেন। এর আগে রাষ্ট্রপতি বিকেলে G7 এর নেতৃবৃন্দের সাথে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সার্বিক পরিস্থিতি ও নিরাপত্তা নিয়ে আলোচনা করেন। বৈঠকে নিজ নিজ দেশের বর্ডার সম্পূর্ণরূপে বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত এই সিদ্ধান্ত বলবত থাকবে।

রাষ্ট্রপতি ইমানুয়েল ম্যাক্রন তাঁর ভাষণে বলেন, “আমরা এখন যুদ্ধে আছি, এই যুদ্ধ স্বাস্থ্য রক্ষায় এবং করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে। আমার এখন যুদ্ধে, জাতিকে মহামারী থেকে রক্ষা করার যুদ্ধে, আমাদের এখন নিজ নিজ গৃহে অবস্থান করতে হবে এবং শান্ত থাকতে হবে।”

রাষ্ট্রপতি তার ভাষণে আরও জানান যে, আগামীকাল ১৭ মার্চ মঙ্গলবার দুপুর থেকে পরবর্তী ১৫ দিন ফ্রান্সে স্বাভাবিক চলাফেরা সম্পূর্ণভাবে নিষিদ্ধ।

তবে বিশেষ প্রয়োজন যেমন- চিকিৎসা নেওয়া, ঔষধ কেনা বা জরুরি সেবা সমূহে নিয়জিত ব্যক্তি ছাড়া কেউ বাইরে বের হতে পারবে না। এই আদেশ কার্যকর করার জন্য জাতীয় পুলিশ এবং জেনডার মেরীর ১ লক্ষ সদস্যরা দায়িত্ব পালন করবে।

নির্দেশনা পালন না করলে কি ধরনের শাস্তি বা জরিমানা করা হবে তা স্পষ্ট করা হয়নি। ভাইরাস ছড়িয়ে পরা বন্ধ করতে নিজ ঘরে অবস্থান করা জরুরি বলা হয়েছে।

যেকোনো সাহায্যর জন্য ১৭ নম্বরে ডায়াল করে জানাতে বলা হয়েছে।

সারাদেশে আর্মি মোতায়েন করা হয়েছে। প্রাথমিক ভাবে অসুস্থদের হাসপাতালে পৌঁছাতে সাহায্য করবে আর্মি।

জার্মান বর্ডারের কাছে আলসাছ (Alsace) শহরে সামরিক হাসপাতালে চিকিৎসা সেবা চালু করা হয়েছে।

মিউনিসিপ্যাল নির্বাচনের দ্বিতীয় ধাপ স্থগিত করা হয়েছে।

রাষ্ট্রপতি আরও জানান যে, “অনেকে নির্দেশনা অনুযায়ী চলছেন না। তারা নিজেকে যেমন সাহায্য করছেন না তেমনি অন্যদের জীবনকেও হুমকির মুখে ঠেলে দিচ্ছেন। দয়া করে রাস্তায় বন্ধু-বান্ধবের সাথে দেখা সাক্ষাত্ করবেন না। সেই সাথে আপনাদের উদ্বিগ্ন না হওয়ার জন্য বলছি। আমরা অবশ্যই জয়ী হবো।”

এছাড়া এই মুহূর্তে যারা কাজে যেতে পারছেন না তাদের বেতন ভাতা ও সমাসের বিষয়ে পরবর্তীতে বিস্তারিত নির্দেশনা জানানো হবে।

ফরাসি প্রেসিডেন্ট বললেন, আমরা যুদ্ধের মধ্যে আছি।

ছোট বড় কোন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান দেউলিয়া হবে না। রাষ্ট্র তা দেখবে।

কেউ বিনা প্রয়োজনে ঘর থেকে বের হবেন না। অন্যথায় শাস্তির সম্মুখীন হবেন।

সব সীমান্ত বন্ধ থাকবে।

এ সময়ে গ্যাস, কারেন্ট বিল দিতে হবে না।

৩০০ বিলিয়ন ইউরোর বেইল আউট।

তথ্য সূত্র: thelocal.fr, BBC, le monde, cnbc.com, le parisien

print

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.