Saturday , 16 October 2021
Breaking

কিভাবে ফ্রান্সে স্ত্রী-সন্তান নিয়ে আসবেন?

how-to-bring-family-to-france-Nobokontho

কিভাবে ফ্রান্সে স্ত্রী-সন্তান নিয়ে আসবেন?

ফারুক নওয়াজ খানঃ Regroupement familial বা পারিবারিক পুর্নমিলনের জন্য আবেদন করতে হলে কি কি দরকার? অনেকেই আমাদের কাছে Regroupement familial বা পারিবারিক পুর্নমিলনের জন্য আবেদন করার জন্য কি শর্ত রয়েছে সেটা জানতে চেয়েছেন। পাশাপাশি আবেদনের সঙ্গে কোন ডকুমেন্ট দিতে হয় এ বিষয়েও অনেকে প্রশ্ন করেছেন।

সকলের সুবিধার কথা বিবেচনা করে এ বিষয়ে বিস্তারিত পোস্ট দেয়া হলো। Regroupement familial বা পারিবারিক পুর্নমিলনের আবেদন কারা করতে পারবে সেটা জানা দরকার। আমরা জানি যারা ফ্রান্সে বসবাস করছেন উদ্বাস্তু ছাড়া তাদের অনেকের পরিবার দেশে রয়েছে। এখন নিজেদের অবস্থান একটু ভাল হলে পরিবারকে আনা সম্ভব।

Regroupement familial বা পারিবারিক পুর্নমিলন বুঝাতে আবেদনকারীর স্বামী বা স্ত্রী এবং সন্তানদের আনার জন্য আবেদন করা বোঝায়। আবেদনের জন্য যে সব শর্ত প্রযোজ্য : -আবেদনকারীকে অবশ্যই কমপক্ষে এক বছরের বৈধ অবস্থানের কার্ড থাকতে হবে। সেটা salarié, vie privée et familiale, étudiantvisiteur প্রভৃতির যে কোন একটা হলেই হবে। -দশ বছরের স্থায়ী কার্ড থাকতে হবে। -কার্ড নবায়নের জন্য প্রিফেকচ্যুরে জমা করলে নবায়নের জন্য দেয়া Récépissé থাকতে হবে। উল্লেখিত তিনটির যে কোন একটি থাকলেই আবেদন করতে পারবেন। আবেদনকারী যদি দুই/তিন জনকে আনতে চায় (স্ত্রী ও দুই সন্তান) তাহলে মাসিক বেতন হতে হবে ন্যুনতম বেতন অর্থাৎ ১২১৯ ইউরো।

আবেদনকারী যদি চার/পাচ জনকে আনতে চায় (স্ত্রী ও চার সন্তান) তাহলে মাসিক বেতন হতে হবে ১৩২২ ইউরো। আবেদনকারী যদি ছয় জন বা তার বেশী সদস্যকে আনতে চায় (স্ত্রী ও পাচ বাচ্চা বা তার বেশী সন্তান) তাহলে মাসিক বেতন হতে হবে ১৪৪২,৫৬ ইউরো। যাদের আনার জন্য আবেদন করা যাবে : স্ত্রী এবং ১৮ বছরের কম বয়সী সন্তানদের আনার জন্য আবেদন করতে পারবেন। সন্তান হিসেবে দত্তক আনতে চাইলে সেটাও সম্ভব তবে প্রয়োজনীয় শর্ত পুরন করতে হবে। অন্যের সন্তানকেও আনা যাবে তবে সেটা বিচারিক প্রক্রিয়ায় হতে হবে। এসব শর্ত ঠিকমতো পুরন করতে পারলে প্রশাসনিক ব্যবস্থা নেয়ার জন্য আবেদন করতে হবে। এ জন্য নির্ধারিত ফরমে আবেদন করতে হবে। ফরমটি অনলাইনে ডাউনলোড করে পুরন করতে হবে।

ফরমের লিঙ্ক : https://www.formulaires.service-public.fr/gf/cerfa_11436.do

ফরমটি সঠিকভাবে পুরন করে আবেদনকারী যে ডিপার্টমেন্টে বাস করেন সে ডিপার্টমেন্টের OFII তে আবেদন করতে হবে। আবেদন ফরমের সঙ্গে যে সব ডকুমেন্ট দিতে হবে : -সিজর কার্ড এর ফটোকপি(উভয় পৃষ্ঠা) -বিবাহের কাবিন নামা -জন্ম সনদ (সকল সদস্যের) -সর্বশেষ ১২ মাসের বেতনের রশিদ -ভাড়া বাসায় থাকলে সর্বশেষ মাসের ভাড়ার রশিদ, -গ্যাস বা বিদ্যুতের বিলের কপি (তিনমাসের) এগুলো না থাকলে বাসার ইন্সুরেন্সের কপি (attestation d’assurance habitation) – বাসা ভাড়ার চুক্তিপত্রের (Bail) কপি। আবেদন করার পর OFII সেটি যাচাই করবে। সে জন্য আবেদনকারী যে পৌরসভায় বাস করেন সেখান থেকে তদন্ত হবে। এরপর OFII একটি মুল্যায়ন কপি প্রিফেকচ্রুরে প্রেরন করবে। এরপর আবেদনকারী পরিবার আনার বিষয়ে অনুমতি দেয়া হবে। সেটা পাওয়ার পরই আবেদনকারীর পরিবার ভিসার জন্য আবেদন করতে পারবে।

 

নিউজের ©সর্বস্বত্ব নবকণ্ঠ কর্তৃক সংরক্ষিত। সম্পূর্ণ বা আংশিক কপি করা বেআইনী , নিষিদ্ধ ও শাস্তিযোগ্য অপরাধ। 

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.